শিরোনাম :

ভয়াবহ ভূমিকম্প, একইসঙ্গে দোসর হবে প্রবল সুনামিও

প্রকাশ: ২০২০-০৪-২৩ ০৯:২৭:০৭ || আপডেট: ২০২০-০৫-০২ ০৬:৫৩:৩৪

ধেয়ে আসতে পারে ভয়াবহ ভূমিকম্প, একইসঙ্গে দোসর হবে প্রবল সুনামিও। এমনই চরম হুঁশিয়ারি দিল জাপানের এক সরকারি সংস্থা। রিখটার স্কেলে এই ভূমিকম্পের মাত্রা হতে পারে ৯। জাপানি সংস্থার তরফে বলা হচ্ছে, এই ধরনের মেগা ভূমিকম্প সচরাচর দেখা যায় না, তবে প্রতি ৩০০-৪০০ বছরের ব্যবধানে এমন হওয়ার নজির রয়েছে।

মনে করা হচ্ছে, এই ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের জেরে বেনজির বিপর্যয় নেমে আসতে পারে জাপানে। এই মহাপ্রলয়ের ফলে সমুদ্রের জল ৩০ মিটার পর্যন্ত উপরে উঠে যেতে পারে। ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে জাপান খাড়ি ও কুরিল খাড়ির। এছাড়া প্রায় ২৯.৭ মিটার সুনামির ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে ইওয়াতে। ২৭.৯ মিটার উঁচু সুনামি আঘাত করতে পারে হোক্কাইডোর এলাকায়। হোক্কাইডো, ইওয়া ছাড়াও মিয়াগে, ফুকুসিমা, ইবারাক, আওমারি, চিবা প্রভৃতি এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

জাপানি ভূ-কম্পনবিদ কেনজি সাতাকে একটি সংবাদপত্রকে বলেছেন, একটা ভয়াবহ ভূকম্পন, সুনামি অবশ্যই হতে চলেছে, অতীতে ৬০০০ বছরে এমন অনেকবারই ঘটেছে।

অন্যদিকে এই ভূমিকম্পের ফলে বা ব্যাপক সুনামির জেরে ফুকুসিমা পরমাণু চুল্লি কেন্দ্র ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যেতে পারে। এ বিষয়ে একটি অ্যালার্ট বার্তা পাঠানো হয়েছে।

তবে এধরনের ভূমিকম্প সূর্যোদয়ের দেশে এই প্রথম না। এর আগেও একাধিকবার ভূমিকম্প ও সুনামির মুখোমুখি হয়েছে এই দেশ। ২০১১সালে ভয়াবহ ভূমিকম্পে প্রভূত ক্ষতি হয়েছিল ফুকুসিমা দাইচি চুল্লির। পাওয়ার কোম্পানি সেই কেন্দ্র সরানোর চেষ্টা করছে।
অন্যদিকে ভূমিকম্পের ও সুনামির এই সতর্কবার্তা জারি হওয়ার পরেই কী ধরনের, কতটা ক্ষয়ক্ষতি হবে, তার আগাম হিসাব কষতে, পাল্টা কী পদক্ষেপ আগে থেকে নেওয়া সম্ভব, সে ব্যাপারে একটি কর্মীগোষ্ঠী গঠন করা হয়েছে। জাপান সরকার পুরোপুরি সচেষ্ট হয়েছে যাতে, এই সঙ্কট কম করা যায়।